Categories
উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ শাক সবজির উপকারিতা

শীতের সবজির উপকারিতা ও গুনাগুন

শীতে সব রকমারী সবজির সমাহার। এই সবজির স্বাদ যেমন বেশি তেমনি এর রয়েছে নানা স্বাস্থ্যগুণও। শীতের সবজি খেলে নানা জটিল রোগ থেকে ভাল থাকা যায়। আবার এগুলো রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ায়, যার ফলে রোগব্যাধি কাছে ঘেঁষতেও পারে না। এমনই বলছেন ঢাকা সেন্ট্রাল ইন্টারন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডায়েট এন্ড নিউট্রিশন কনসালটেন্ট পুষ্টিবিদ তাসনিম আশিক।

শীতের সবজির উপকারিতা ও গুনাগুন:

বাঁধাকপি:
বাঁধাকপি ভিটামিন কে এবং ভিটামিন সি-এর খুব ভালো একটি উত্‍স। সেই সঙ্গে এই সবজিতে রয়েছে প্রচুর ফাইবার। এই ফাইবার ওজন কমাতে সাহায্য করে। তবে পরিমিত তেল ব্যবহার করে তা রান্না করে খেতে হবে। ভিটামিন সি থাকায় তা এন্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে এবং ত্বক সুন্দর রাখে। তবে যাদের ইউরিক এসিড এবং ক্রিয়েট্নিনের মাত্রা বেশি তাদের জন্য এই সবজি খেতে কিছুদিন নিষেধ করা হয়, তবে ইউরিক এসিড ও ক্রিয়েটিনিন স্বাভাবিক হয়ে গেলে অবশ্যই খেতে পারবেন।

ফুলকপি:
শীতের সবজির মূল আকর্ষণ কিন্তু ফুলকপি। এই আকর্ষণীয় সবজিটিতে আছে ভিটামিন কে, ভিটামিন সি, ভিটামিন বি৬, ম্যাগনিসিয়াম, ফসফরাস এবং পটাশিয়াম। যা আমাদের শরীরের মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টের চাহিদা পূরণ করে থাকে। সেই সঙ্গে ফুলকপিতে রয়েছে কোলিন, যা গর্ভকালীন সময়ে খেলে গর্ভস্থ শিশুর ব্রেইন ডেভেলপমেন্ট ভালো হয়। এছাড়াও এতে রয়েছে এন্টি-ইনফ্লেমেটরি নিউট্রিয়েন্ট যা শরীরের প্রদাহজনিত সমস্যা দূর করে থাকে। তবে এই সবজিটি যাদের ইউরিক এসিড এবং ক্রিয়েটিনিন বেশি তারা এসব স্বাভাবিক মাত্রায় না আসা পর্যন্ত এড়িয়ে চলবেন।

গাজর:
প্রথমত গাজরের বিটা-ক্যারোটিন দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে সাহায্য করে। গাজর এমন একটি সবজি যা ত্বককে অনেক বেশি উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে। স্মৃতিশক্তি বাড়ায় ও রক্ত পরিস্কার রাখে গাজর।

টমেটো:
টমেটো কিন্তু শীতের সবজি, তবে সারাবছরই পাওয়া যায়। তবে শীতের টমেটোর স্বাদই আলাদা। এই টমেটোতে রয়েছে থায়ামিন ও রাইবোফ্লাভিন। যা স্নায়ুতন্ত্রের বিভিন্ন ধরনের গ্রন্থি ও পরিপাকতন্ত্রের সুস্থতা রক্ষা করে থাকে। এটি ক্যান্সার প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে থাকে। অস্ট্রিওম্যালেয়শিয়া, অস্ট্রিওপোরোসিসের মতো রোগের ঝুঁকি কমাতেও সাহায্য করে টমেটো।

ব্রকলি:
সবুজ রঙের ফুলকপির মতো দেখতে এই সবজিটির নাম ব্রকলি। এর রয়েছে শক্তিশালী কিছু এন্টিঅক্সিডেন্ট, যা ক্যান্সার প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে। ব্রকলিতে রয়েছে ক্যালসিয়াম, যা হাড়ের সুস্থতা প্রদান করে থাকে। মানুষিক চাপ কমাতেও সাহায্য করে থাকে এই সবজি এবং এতে রয়েছে প্রচুর ফাইবার, যা কোলেস্টেরল কমিয়ে থাকে।

শালগম:
শরীরের রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে শালগম। রক্তস্বল্পতা বা এনিমিয়ার সমস্যা দূর করতে দারুন কার্যকর এই সবজি। শুধু তাই নয়, আরথ্রাইটিসের সমস্যাও দূর করে থাকে শালগম।

পেঁয়াজকলি:
খুবই সুস্বাদু একটি পাতা এটি যা তরকারি, সবজি বা ভাজি এবং সালাদের স্বাদ বাড়তে সাহায্য করে। এটি শরীরের ব্যাথা দূর করতে সাহায্য করে থাকে। কোন ইনফেকশন দূর করতে সাহায্য করে। রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা ঠিক রাখতে সাহায্য করে, হজমশক্তি ভালো রাখে এবং হার্ট সুস্থ্য রাখতেও সাহায্য করে পেঁয়াজকলি।

শীতের সবজির উপকারিতা | পুষ্টিবিদএর মতে, এসব সবজি যদি অনেক বেশি তেলে অর্থাত্‍ প্রয়োজনের অতিরিক্ত তেলে অনেকক্ষণ কষিয়ে রান্না করা হয় তবে তা ওজন আরও বৃদ্ধি করে থাকে। এজন্য কম তেল ব্যবহার করে সতেজ সবজিগুলো সব মসলা মাখিয়ে জল দিয়ে ঢেকে রান্না করা যায়, কিংবা ভাব দিয়ে বাগারের মাধ্যমে রান্না করা গেলে তা হবে বেশি স্বাস্থ্যসম্মত।

Photo by FitNish Media on Unsplash

Categories
চাকরির খবর সরকারি

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১:সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর জনবল নিয়োগের জন্য সম্প্রতি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। ৫ পদে মোট ৪০৫ জনকে নিয়োগে এ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। বিজ্ঞপ্তি অনুসারে পদগুলোয় যোগ্যতা পূরণ সাপেক্ষে যোগ দিতে পারবেন যেকেউ। অনলাইনে পদগুলোর জন্য আবেদন করতে পারবেন আগ্রহীরা। আবেদন শুরু হবে আগামী ১ মার্চ থেকে। আবেদন করা যাবে ৩১ মার্চ পর্যন্ত।

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১

পদের নাম ও পদসংখ্যা

পদের নাম : সার্ভেয়ার
পদ সংখ্যা : ২৭ টি।
শিক্ষাগত যোগ্যতা : এসএসসি পাশ অথবা ডিপ্লোমা ইন সার্ভে টেকনোলজি পাশ।
বেতন স্কেল: ১০,২০০-২৪,৬৮০ টাকা।

পদের নাম : কার্যসহকারী
পদ সংখ্যা : ১৭৪ টি।
শিক্ষাগত যোগ্যতা : এইচএসসি পাশ।
বেতন স্কেল: ৯,৩০০-২২,৪৯০ টাকা।

পদের নাম : ইলেকট্রিশিয়ান
পদ সংখ্যা : ৩২ টি।
শিক্ষাগত যোগ্যতা : এসএসসি পাশ।
বেতন স্কেল: ৯,৩০০-২২,৪৯০ টাকা।

পদের নাম : অফিস সহায়ক
পদ সংখ্যা : ৬৬ টি।
শিক্ষাগত যোগ্যতা : এসএসসি পাশ।
বেতন স্কেল: ৮,২৫০-২০,০১০ টাকা।

পদের নাম : সড়ক শ্রমিক
পদ সংখ্যা : ১০৬ টি।
শিক্ষাগত যোগ্যতা : প্রাইমারী পাশ।
বেতন স্কেল: ৮,২৫০-২০,০১০ টাকা।

আবেদনের যোগ্যতা:
প্রতিটি পদে আবেদনের জন্য আবেদনের যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা এবং বয়সসীমা আলাদা আলাদা। পদভেদে আবেদনের যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা এবং বয়সসীমার শর্তাবলি জানা যাবে বিজ্ঞপ্তিতে।

চাকরি আবেদনের বয়স:
প্রার্থীর বয়স ০১-০৩-২০২১ তারিখে ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। তবে মুক্তিযোদ্ধা/শহীদ মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের ক্ষেত্রে বয়স ৩২ বছর।

আবেদন শুরুর সময়: ০১ মার্চ ২০২১ তারিখ সকাল ১০:০০ টা থেকে আবেদন করা যাবে।
আবেদনের শেষ সময়: ৩১ মার্চ ২০২১ তারিখ বিকাল ০৫:০০ টা পর্যন্ত আবেদন করা যাবে।

আবেদনের নিয়ম:
আগ্রহী প্রার্থীরা (http://rhd.teletalk.com.bd/) ওয়েবসাইট থেকে আবেদনপত্র পূরণ করতে পারবেন।

Info: prothomalo

Categories
টিপস লাইফ স্টাইল

ঘুম রেগুলার কম হলে যেসব সমস্যায় আপনাকে পড়তে হবেই!

রাত হলে সময় মতো বিছানায় যান ঠিকই কিন্তু ঘুম আসে না কিছুতেই! ঘুমের জন্য অপেক্ষা করতে করতে রাতের প্রায় অর্ধেকটাই পার হয়ে যায় বিছানায় এপাশ-ওপাশ করতে করতে। এমন সমস্যায় যারা আছেন, তারা অনেকেই ঘুমানোর জন্য ঘুমের ওষুধের সাহায্য নিয়ে থাকেন। কিন্তু ঘুমের ওষুধের প্রতি অতিরিক্ত নির্ভরশীলতাও শরীরের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

ঘুম মূলত আমাদের শরীরের ক্ষয়ক্ষতি পূরণ ও শক্তি সঞ্চয়ের একটি পন্থা। কিন্তু নিয়মিতভাবে ঘুম কম হলে শরীরে নানা রোগব্যাধি বাসা বাঁধে এবং শরীর গতি হারিয়ে ফেলে। অকালে বৃদ্ধ হওয়ার ঝুঁকিও অনেকটা বাড়িয়ে দেয়। এবার জেনে নেওয়া যাক, কম ঘুমের জন্য শরীরে কী কী ধরনের ক্ষতি হতে পারে.

উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা বৃদ্ধি করে:
দিনে পর্যাপ্ত ঘুম না হলে বা কম হলে বাড়তে পারে উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা। চিকিত্সকদের মতে আমরা না ঘুমালে আমাদের শরীরের ‘লিভিং অরগানিজম’গুলো ঠিক মতো কাজ করতে পারে না। নষ্ট হতে পারে শরীরের হরমোনের ভারসাম্য। বাড়তে পারে উচ্চ রক্তচাপ, হাইপার টেনশনের মতো সমস্যা।

হার্টের সমস্যা বৃদ্ধি করে:
আমরা যখন ঘুমাই তখন আমাদের হৃদপিণ্ড এবং রক্তনালী কিছুটা হলেও বিশ্রাম পায়। কিন্তু ঘুম না হলে বা কম হলে প্রতিনিয়ত কার্ডিওভ্যস্কুলার সমস্যা বাড়তে থাকে। এর ফলে হার্টের সমস্যা বাড়তে থাকে।

ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়ায়:
দীর্ঘদিন রাতে না ঘুমানো বা কম ঘুমানোর ফলে শরীরে ইনসুলিন উত্‍পাদন ব্যাহত হয়। যার ফলে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়তে থাকে।

শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট করে:
যখন আমরা ঘুমাই, তখন আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য ‘লিভিং অরগানিজম’ কাজ করতে থাকে। কিন্তু আমরা না ঘুমালে এই ‘লিভিং অরগানিজম’গুলো কাজ করতে পারে না। ফলে ক্রমশ আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমতে থাকে।

মানসিক স্বাস্থ্য নষ্ট হয়:
মস্তিষ্কে ওরেক্সিন নামের একটি নিউরোট্রান্সমিটার আছে যা মস্তিষ্ককে সচল রাখতে সহায়তা করে। প্রতিদিন পর্যাপ্ত ঘুম না হলে ওরেক্সিন উত্‍পাদনের গতি মন্থর হয়ে যায়। মস্তিষ্কের কর্ম ক্ষমতা কমতে থাকে। মস্তিষ্ক পর্যাপ্ত পরিমাণ বিশ্রাম না পেলে অতিরিক্ত বিষণ্ণতা, হ্যালুসিনেশনের, স্মৃতিভ্রংশের মতো একাধিক সমস্যা দেখা দিতে পারে। দিনে দিনে নিজের বিচার বিশ্লেষণ করার ক্ষমতাও লোপ পেতে পারে।

হজমে সমস্যা সৃষ্টি করে:
প্রতিদিন পর্যাপ্ত ঘুম না হলে বাড়তে পারে হজমের সমস্যাও। আমরা না ঘুমালে আমাদের শরীরের পাচন ক্রিয়ায় সাহায্যকারী অঙ্গ-প্রত্যঙ্গগুলো সঠিকভাবে কাজ করতে পারে না। ফলে খাবার হজমে সহায়ক পাচক রস উপযুক্ত মাত্রায় নিঃসরণে বাধা পায়। তাই হজমের নানা সমস্যা শুরু হয়।

সুতরাং, ঘুম আমাদের জন্য অত্যন্ত জরুরি একটি পন্থা। আমাদের দৈহিক প্রায় সকল কার্যকলাপই ঘুমের উপরে অনেকটাই নির্ভরশীল। তাই কোন রকম অবহেলা না করে নিয়মিত প্রতিদিন অন্তত ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা ঘুমানো অত্যন্ত জরুরি। কিন্তু যদি নিয়মিত স্বাভাবিকভাবে ঘুম না আসে, তাহলে ইচ্ছেমতো ওষুধ না খেয়ে চিকিত্সকের পরামর্শ নিন।

এছাড়া শারীরিক পরিশ্রম, ব্যায়াম, খেলাধুলা ভালো ঘুমের জন্য সহায়ক। আর স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খেতে চেষ্টা করুন। অবশ্যই ঘুমের সময়ে মোবাইল ঘাঁটাঘাটি থেকে দূরে থাকবেন।

Photo by Alexandra Gorn on Unsplash

Categories
চাকরির খবর

তিতাস গ্যাস নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2021

তিতাস গ্যাস নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2021: তিতাস গ্যাস সম্প্রতি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। প্রতিষ্ঠানটি তাদের আইসিটি ডিভিশনে চুক্তিভিত্তিক লোকবল নিয়োগ দেবে। আগ্রহীর অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।

তিতাস গ্যাস নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2021

প্রতিষ্ঠানের নাম- তিতাস গ্যাস

পদের নাম- উপ-মহাব্যবস্থাপক

পদের সংখ্যা-১টি

যোগ্যতা

১। যেকোন স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কম্পিউটার সায়েন্স বা সমমানে স্নাতক ডিগ্রি থাকতে হবে।

২। সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে কমপক্ষে ৩ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

৩। বয়সীমা ৪৫ বছর।

বেতন- ৫০,০০০ টাকা।

পদের নাম- ব্যবস্থাপক

পদের সংখ্যা-১টি

যোগ্যতা

১। যেকোন স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কম্পিউটার সায়েন্স বা সমমানে স্নাতক ডিগ্রি থাকতে হবে।

২। সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে ৩ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

৩। বয়সসীমা ৪০ বছর।

বেতন- ৪৩০০০ টাকা।

আবেদনের নিয়ম

আবেদনপত্র উপ-মহাব্যবস্থাপক (মানব সম্পদ উন্নয়ন বিভাগ), তিতাস গ্যাস টি এণ্ড ডি কোং লিঃ, ১০৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কাওরান বাজার বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১২১৫ বরাবর ডাকযোগে প্রেরণ করতে হবে।

আবেদনের শেষ তারিখ

২৫ মার্চ ২০২১ পর্যন্ত

Image By: dhakapost
Categories
লাইফ স্টাইল

ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণের উপায়

আমাদের শরীরের কাঠামো তৈরি হয় হাড়ের মাধ্যমে। অথচ হাড়ের যত্নের বিষয়ে আমরা বেশির ভাগ মানুষই খুব উদাসীন বা তেমনভাবে কিছুই জানি না। প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় যেগুলো থাকে তাও যে হাড়ের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর তাও জানি না। লবণ অর্থাত্‍ সোডিয়াম ক্লোরাইড, সফট ড্রিংকস, চা ও কফির মধ্যে থাকা ক্যাফেইন, অতিরিক্ত প্রোটিন বা প্রাণীজ প্রোটিন ইত্যাদি হাড়ের জন্য ক্ষতিকর।

তবে এমন অনেক খাবার বা খাদ্য উপাদান রয়েছে যেগুলো নিয়মিত খেতে পারলে শরীরে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি দূর হবে, হাড় হয়ে উঠবে মজবুত! আর হাঁটতে-বসতে হাঁটুর ব্যথাও কমবে।

জেনে নিন, ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণের উপায় গুলো:

১. কমলালেবু, পাতিলেবুর মতো যে কোন লেবুতেই থাকে সাইট্রিক অ্যাসিড আর ভিটামিন সি। যা শরীরে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি দ্রুত মেটাতে সাহায্য করে।

২. কাঠ বাদামে প্রচুর পরিমাণে থাকে ক্যালসিয়াম। পুষ্টিবিদরা জানাচ্ছেন, ১০০ গ্রাম কাঠ বাদামে প্রায় ২৬৬ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম থাকে। তাই শরীরে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি মেটাতে প্রতিদিন খেতে পারেন এক মুঠো কাঠ বাদাম।

৩. ব্রোকলিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম। ক্যালসিয়ামে ভরপুর এই সবজি শরীরে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি দ্রুত মেটাতে সাহায্য করে।

৪. ৫০ গ্রাম ঢ্যাড়স বা ভেন্ডিতে প্রায় ১৭২ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম থাকে। তাই শরীরে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি মেটাতে প্রতিদিন খেতে পারেন ঢ্যাড়স। উপকার পাবেন।

৫. শরীরে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি মেটাতে সয়াবিন অত্যন্ত কার্যকর। এক কাপ সয়াবিনে প্রায় ১৭৫ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম থাকে। তাই নিয়মিত খাবারে রাখতে পারেন সয়া।

৬. তিলের বীজে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম রয়েছে। পুষ্টিবিদরা জানাচ্ছেন, ১০০ গ্রাম কাঁচা তিলের বীজে ১,০০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম থাকে। তিলের বীজ ভেজে নিয়মিত খান। উপকার পাবেন।

এছাড়া সবুজ শাক-সবজি খেলেও উপকার পাবেন। শরীর-স্বাস্থ্যও ভাল থাকবে।

Categories
রূপচর্চা

নেলপলিশ লাগালেই উঠে যায়, দেখে নিন সমাধান?

শেপ করা নখ (nail polish)। আর তাতে পছন্দসই নেলপলিশ। আপনি যদি সাজতে পছন্দ করেন, তাহলে এ হেন নখ পরিচর্চা আপনার রূপ রুটিনে থাকবেই। কিন্তু নখের উপর অর্ধেক নেলপলিশ অথবা কিছুটা উঠে যাওয়া নেলপলিশ কখনও দেখতে ভাল লাগে না। বিভিন্ন কাজে নেলপালিশ উঠে যাওয়াটা অস্বাভাবিক নয়। কী করলে আপনার নেলপলিশ অনেকক্ষণ নখে থাকবে, সে বিষয়ে সাজেশন দেওয়ার চেষ্টা করলাম আমরা। হয়তো আপনাদের কাজে লাগবে।

#টপকোট

নেলপলিশ একবার লাগিয়ে শুকিয়ে নেওয়ার পর আরও একবার লাগান। অর্থাত্‍ টপকোট দিন। যে কোনও ধরনের নেলপলিশনেই টপকোট দিতে পারবেন। এতে যেমন গ্লসি হবে, তেমনই নেলপলিশ বেশ কিছুদিন স্থায়ী হবে।

#বেস কোট

টপ কোটের মতোই বেস কোট লাগিয়ে নিন। অর্থাত্‍ নখের উপর খুব হালকা ভাবে নেলপলিশের একটা কোট দিন। দ্বিতীয় কোটে নেলপলিশের আসল রং বোঝা যাবে। এরপর হবে টপ কোট।

#হ্যান্ড ক্রিম

ত্বকের ক্ষেত্রে সানস্ক্রিন যেমন সূর্যের অতি বেগুনি রশ্মি থেকে রক্ষা করে, তেমনই নেলপলিশ লাগানোর আগে হ্যান্ড ক্রিম লাগিয়ে নিন। দিনে অন্তত দু’বার হ্যান্ড ক্রিম লাগানোর অভ্যেস থাকলে নখ আর্দ্র থাকে। নখ শুষ্ক থাকলে নেলপলিশ লাগালে দ্রুত উঠে যাওয়ার সম্ভবনা থাকে।

#নখের কোণায় নজর

নেলপলিশ লাগানোর সময় যত্ন নিতে হবে। অর্থাত্‍ নখের প্রতিটি কোণায় যাতে নেলপলিশ লাগানো হয়, সেদিকে লক্ষ্য রাখুন। অনেক সময় নেলপলিশ পরার গলদ থেকে যায়। ফলে তাড়াতাড়ি উঠে যেতে পারে।

গ্লাভস

যদি প্রতিদিন ঘরের কাজে আপনাকে ব্যস্ত থাকতে হয়, তাহলে নখের যত্নের জন্য গ্লাভস পরে কাজ করুন। এতে সরাসরি জল বা সাবান লাগবে না। নেলপলিশ দীর্ঘস্থায়ী হবে।

Image by Yana Miller from Pixabay

Categories
উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ খাবারের উপকারিতা

লেবুর আচার খাওয়ার উপকারিতা ও গুনাগুন

বাঙালির খাবারগুলি তার স্বাদ এবং গন্ধের জন্য পরিচিত। বেশিরভাগ মশলা খাবারে স্বাদ এবং গন্ধ যুক্ত করতে ব্যবহৃত হয়। খাবারটি যদি মশলাদার না হয় তবে আপনি তা আচারের সহ খেতে পারেন।
পুষ্টিবিদ রুজুতা দিবাকর একটি ইনস্টাগ্রাম পোস্টে আচার সম্পর্কিত অস্বাস্থ্যকর প্রাচীন পুরাণটি প্রকাশ করেছেন।

আচার নিয়ে কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন যে এগুলি ভিটামিন এ, ভিটামিন কে এবং প্রোবায়োটিক ব্যাকটেরিয়ায় সমৃদ্ধ। লেবু আচার স্বাস্থ্যকর বিকল্পগুলির মধ্যে একটি। লেবু আচার কেন আপনার ডায়েটের একটি অংশ হওয়া উচিত্‍ তা জানতে পেরে আপনি খুশি হবেন।

জেনে নিন,লেবুর আচার খাওয়ার উপকারিতা ও গুনাগুন:

রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে :

সুস্থ জীবনের জন্য ভাল রক্ত ​​প্রবাহ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। রক্ত প্রবাহে ওঠানামা কম বেশি রক্তচাপের কারনে হতে পারে তাই উভয় অবস্থাই বিপজ্জনক। আপনার ডায়েটে অল্প পরিমাণে লেবুর আচার অন্তর্ভুক্ত করা রক্তের প্রবাহকে উন্নত করতে সহায়তা করতে পারে। এটি তামা, পটাসিয়াম, আয়রন এবং ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ।

আপনার হাড়ের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে :

বিশেষত মহিলাদের মধ্যে হাড়গুলি বার্ধক্যের সাথে খারাপ হতে শুরু করে। ক্যালসিয়াম এবং আয়রনের অভাবে এটির জন্য ঘটে। ক্যালসিয়াম, ভিটামিন সি, এ, পটাসিয়াম সমৃদ্ধ খাবারের ব্যবহার আপনার হাড়কে সুস্থ রাখতে সহায়ক হতে পারে।

ইমিউন সিস্টেমকে স্বাস্থ্যকর রাখে :

মহামারীটি কীভাবে আমাদের প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী রাখতে হয় তা শিখিয়েছে। পরিপূরক গ্রহণের পাশাপাশি প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী রাখার সর্বোত্তম উপায় হ’ল স্বাস্থ্যকর খাওয়া। লেবু আচার সহ অনেকগুলি খাবার রয়েছে যা আপনার প্রতিরোধ ব্যবস্থা তৈরি করতে সহায়তা করতে পারে।

হজমের সমস্যা দূরে রাখে:

লেবুর আচারে এমন এনজাইম রয়েছে যা শরীর থেকে টক্সিনগুলি সরিয়ে ফেলে। স্বাস্থ্যকর হজম ব্যবস্থা থাকা অনেক ক্ষেত্রে যেমন পিম্পলগুলি হ্রাস করা এবং ওজন হ্রাস প্রচারকে সহায়তা করে।

Image By: Youtube

Categories
উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ খাবারের উপকারিতা

সুস্থ থাকতে চাইলে খালি পেটে ডিম খান

খালি পেটে ডিম (egg)- একাধিক গবেষণায় একথা প্রমাণিত হয়ে গেছে যে সকাল উঠেই যদি একটা করে ডিম (egg)খাওয়া যায়, তাহলে শরীরের নানা উপকারে লাগে। সেই সঙ্গে যে যে মারণ রোগগুলি এখন দাপিয়ে বেরাচ্ছে, সেগুলির প্রকোপ কমতেও সময় লাগে না। তাই তো প্রতিদিন সকালে একটা করে ডিম (egg) খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন চিকিত্‍সকেরা। আসলে প্রোটিন এবং আরও নানা সব কার্যকরী উপাদানে ঠাসা এই খাবারটি শরীরে প্রবেশ করা মাত্র যে যে কাজগুলি করে থাকে, সেগুলি হল.

১. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উন্নতি ঘটে:

বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে ডিমের (egg) অন্দের উপস্থিত সেলেনিয়াম দেহের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে এতটা শক্তিশালী করে তোলে যে, কোনও ধরনের সংক্রমণে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা একেবারে কমে যায়, সেই সঙ্গে ছোট-বড় কোনও রোগই ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না। প্রসঙ্গত, ব্রেকফাস্টে যদি একটার জায়গায় দুটো করে ডিম খাওয়া যায়, তাহলে বেশি উপকার মেলে।

২. নিমেষে ক্ষিদে কমে যায়:

ব্রেকফাস্টে দুটো ডিমের (egg) অমলেট বা পোচ খেয়ে দেখুন তো কী হয়! দেখবেন দুপুরের আগে ক্ষিদে পাওয়ার নামই নেবে না। তাই যাদের সকাল সকাল অফিসে বেরতে হয়, তারা ব্রেকফাস্ট না করার পরিবর্তে দুটো ডিম (egg)সেদ্ধ খেয়ে বেরিয়ে পরুন। তাহলেই দেখবেন কেল্লাফতে! এমনটা করলে শরীরের অন্দরে ভাঙন তো ঘটবেই না, উল্টে ক্ষিদের জ্বালা কমবে এবং পুষ্টির ঘাটতি দূর হবে।

৩. এনার্জির ঘাটতি দূর করে:

সকাল ঘুম থেকে ওঠার পর ঠিক কোনও জিনিসটার বেশি করে প্রয়োজন পরে বলুন তো? আরে মশাই এনার্জির! একেবারেই ঠিক। তাই তো দাঁত মাজার পর টপ করে একটা ডিম সেদ্ধ খেয়ে নিতে হবে। তাহলেই দেখবেন ক্লান্তি তো দূর হবেই, সেই সঙ্গে কর্মক্ষমতাও বৃদ্ধি পাবে। আসলে ডিমে (egg)উপস্থিত স্বাস্থ্যকর ফ্যাট এবং অন্যান্য পুষ্টিকর উপাদান নিমেষে দেহের প্রয়োজনীয় জ্বালানির চাহিদা পূরণ করে। ফলে শরীরের চনমনে হয়ে উঠতে একেবারে সময়ই লাগে না।

৪. দৃষ্টিশক্তির উন্নতি ঘটে:

ডিমে (egg)উপস্থিত অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, লুটিন এবং জিয়েক্সসেনথিন নামে বেশ কিছু উপকারি উপাদান দৃষ্টিশক্তির উন্নতিতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। সেই সঙ্গে ছানি হওয়ার আশঙ্কাও কমায়। খালি পেটে ডিম .

৫. প্রোটিনের ঘাটতি দূর করে:

ডিমে (egg)উপস্থিত অ্যালবুমিন নামে এক ধরনের প্রোটিন পেশির গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই এনার্জি বৃদ্ধির পাশাপাশি শরীরের অভ্যন্তরীণ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্যও সকাল সকাল ডিম খাওয়াটা জরুরি। প্রসঙ্গত, যারা সকালে নিয়মিত শরীরচর্চা করেন, তারা ডিম খেতে ভুলবেন না যেন! এমনটা করলে দেখবেন একাধিক রোগ আপনার ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারবে না।

৬. মস্তিষ্কের ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়:

বুদ্ধির জোর বারাতে কে না চায় বলুন! আপনিও যদি সেই দলে থাকেন, তাহলে কাল সকাল থেকেই ডিম খাওয়া শুরু করুন। আসলে ডিমে উপস্থিত বেশ কিছু পুষ্টিকর উপাদান মস্তিষ্কের ক্ষমতা মারাত্মক বাড়িয়ে দেয়। ফলে একদিকে যেমন বুদ্ধির বিকাশ ঘটে, তেমনি স্মৃতিশক্তি এবং মনোযোগও বৃদ্ধি পায়। প্রসঙ্গত, ডিমে কোলিন নামে একটি উপাদান থাকে, যা এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। খালি পেটে ডিম (egg).

৭. ওজন কমতে শুরু করে:

একেবারেই ঠিক শুনেছেন। ডিম (egg) খেলে ওজন বাড়ে না। বরং কমে! পেনিংটন বায়োমেডিকাল রিসার্চ সেন্টারের করা এক গবেষণায় একথা প্রমাণিত হয়ে গেছে যে সকাল সকাল ডিম খেলে দিনের অনেকটা সময় পর্যন্ত ক্ষিদে পায় না। ফলে খাওয়ার পরিমাণ কমতে শুরু করে। সেই সঙ্গে শরীরে মাত্রাতিরিক্ত ক্যালরি জমার সম্ভাবনাও হ্রাস পায়। ফলে স্বাভাবিকবাবেই ওজন কমতে শুরু করে। তাই যারা ওবেসিটির সমস্যায় ভুগছেন, তারা নিয়ম করে ব্রেকফাস্টে ডিম খাওয়া শুরু করুন। দেখবেন উপকার পাবেন। প্রসঙ্গত, পোচ অথবা সেদ্ধ ডিম খাওয়ার চেষ্টা করবেন। তাতে বেশি উপকার পাওয়া যায়। খালি পেটে ডিম .

Categories
চাকরির খবর ব্যাংক ও এনজিও সরকারি

সমন্বিত চার ব্যাংকে ১৪৩৯ নিয়োগ

ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি সমন্বিত চার ব্যাংকের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। প্রতিষ্ঠানগুলো ১৪৩৯ জন লোক নিয়োগ দেবে। আগ্রহীরা বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েব সাইটের মাধ্যমে অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম- সোনালী ব্যাংক

পদের নাম- অফিসার (ক্যাশ)

পদের সংখ্যা-৮৪৬টি

প্রতিষ্ঠানের নাম-জনতা ব্যাংক

পদের নাম- অফিসার (ক্যাশ)

পদের সংখ্যা- ১০৫টি

প্রতিষ্ঠানের নাম- অগ্রণী ব্যাংক

পদের নাম- অফিসার (ক্যাশ)

পদের সংখ্যা- ৪০০টি

প্রতিষ্ঠানের নাম-রূপালী ব্যাংক

পদের নাম- অফিসার (ক্যাশ)

পদের সংখ্যা-৮৫টি

প্রতিষ্ঠানের নাম- বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক

পদের নাম-অফিসার (ক্যাশ)

পদের সংখ্যা- ৩টি

আবেদন যোগ্যতা

১। স্বীকৃত যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যেকোনো বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি বা চার বছরের স্নাতক/স্নাতক (সম্মান) ডিগ্রি থাকতে হবে।

২। মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট/সমমান এবং তদূর্ধ্ব পর্যায়ের পরীক্ষাগুলোয় ন্যূনতম একটিতে প্রথম বিভাগ/শ্রেণি থাকতে হবে।

৩। কোনো পর্যায়ে তৃতীয় বিভাগ/শ্রেণি গ্রহণযোগ্য হবে না।

৪। চলতি বছরের ১ মার্চে প্রার্থীর বয়স সর্বোচ্চ ৩০ বছর হতে হবে। তবে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও শারীরিক প্রতিবন্ধী আবেদনকারীর ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বয়সসীমা একই দিনে ৩২ বছর।

আবেদন ফি

পরীক্ষার ফি অফেরতযোগ্য ২০০ টাকা।

বেতন ও সুযোগ সুবিধা

১। বেতন স্কেল ১৬,০০০-৩৮,০০০ টাকা

২। ব্যাংকের বেতন রীতি অনুসারে অন্যান্য সুবিধা

আবেদন যেভাবে

বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইট (https://erecruitment.bb.org.bd)-এর মাধ্যমে আবেদন করা যাবে।

আবেদনের শেষ তারিখ

২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১ পর্যন্ত

Categories
উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ শাক সবজির উপকারিতা

করলার তেতো চা: ডায়াবেটিস ও কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে পান করুন করলা চা

করলা আমাদের প্রিয় খাদ্য না হতে পারে, কিন্তু এর পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আমরা সকলেই জানি। বিভিন্ন স্মুদি ও সবজির জুসের পুষ্টিগুণ বৃদ্ধির জন্য করলা মেশানো হয়ে থাকে। এটি রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে, লিভার পরিষ্কার করে, ওজন নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে এই করলা। করলার উপকারিতা লাভের আরও একটি উপায় হল করলার তেতো চা পান করা।

জেনে নিন করলার তেতো চায়ের পুষ্টিগুণ:

শুকনো করলার টুকরাকে জলে ভিজিয়ে রেখে এই তেতো চা তৈরি হয় এবং ওষুধ হিসেবে বিক্রি হয়। এটি গুঁড়ো বা নির্যাস হিসেবেও বাজারে পাওয়া যায়। এই চা করলার পাতা, ফল এবং বীজ দিয়েও তৈরি করা যায়।

নীচে এর কিছু উপকারিতা দেওয়া হল।

  1. রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ:
    প্রাচীনকাল থেকেই ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে করলার ব্যবহার হয়ে আসছে। করলার চাও এতে উপযোগী।
  2. রক্তে কোলেস্টেরল কমাতে:
    এই চা রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে শরীর সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।
  3. লিভার পরিষ্কার রাখে:
    লিভার ডিটক্স করতে সাহায্য করে ফলে বদহজম রোধ করে।
  4. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে:
    এই চায়ে উপস্থিত ভিটামিন সি কোনো ইনফেকশনের হাত থেকে রক্ষা করে ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
  5. দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি করে:
    করলা চায়ে উপস্থিত ভিটামিন এ চোখ ভালো রাখে।

করলার তেতো চা তৈরির পদ্ধতি:

সহজেই বানান করলার তেতো চা। কিছু পরিমাণ শুকনো বা তাজা করলার টুকরো, জল এবং মিষ্টির জন্য স্বাদ মতো মধু নিন। করলা গাছের পাতাও ব্যবহার করা যায়, তবে করলা সহজলভ্য তাই করলা ব্যবহার করুন। জল ফুটিয়ে নিন, তার মধ্যে শুকনো করলার টুকরো দিয়ে 10 মিনিট মাঝারি আঁচে ফোটান যাতে করলার সমস্ত পুষ্টিদ্রব্য জলে মিশে যায়। আঁচ থেকে নামিয়ে আরও কিছুক্ষণ ঢেকে রাখুন। এরপর কাপে চা ছেঁকে নিন এবং মিষ্টির জন্য মধু মেশান। আপনার করলার চা তৈরি। তবে রক্তে সুগার নিয়ন্ত্রণে এই চা খেলে মিষ্টি ব্যবহার করবেন না।